ঢাকাঢাকা বিভাগদর্শনীয় স্থানবাংলাদেশ ভ্রমণ গাইড

দিয়াবাড়ির দর্শনীয় জায়গা সমূহ | ছুটির দিনে ঘুরে আসুন দিয়াবাড়ি

কর্মব্যস্ত এক শহর ঢাকা। এখানে একটু বিরতি নিয়ে প্রশান্তি ভরে শ্বাস নেয়ার তেমন কোনো জায়গা নেই বললেই চলে। ইট, কাঠ, কংক্রিটের এই শহরে এক টুকরো সবুজের সমারোহ আর নির্মল পরিবেশের দেখা মেলা ভার। তবে আপনি যদি উত্তরা দিয়াবাড়িতে যান তাহলে এই কথাটি একদম মিথ্যা প্রমাণিত হবে বলে আমার বিশ্বাস।

দিয়াবাড়ির অবস্থান রাজধানীর উত্তরার ১৫ নম্বর সেক্টরে। এখানকার সবুজ প্রাকৃতিক সৌন্দর্য আপনাকে শুভ্রতার এক কোমল রাজ্যে নিয়ে যাবে। শরৎকালে দিয়াবাড়ির রুপের যেন কোন শেষ নেই। এই সময় পুরো দিয়াবাড়ি জুড়েই দেখা মিলবে কাশফুলের। এখানকার কাশফুল দেখে আপনার মনে পড়বে ছোটবেলায় আবৃতি করা রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর-এর ‘আমাদের ছোট নদী’ কবিতার কথা। কবিতার ‘একধারে কাশবন ফুলে ফুলে সাদা’ এই লাইনটা মনে চলে আসবে নিজের অজান্তেই!

দিয়াবাড়ি উত্তরা – Diabari Uttara

অপরুপ এই জায়গাটিকে ঢাকার কাশফুলের রাজ্য বললেও ভুল হবে না। সপ্তাহের ছুটির দিন অথবা যে কোনো উৎসবের ছুটিতে পর্যটনপ্রিয় মানুষেরা এখন ছুটে যান দিয়াবাড়িতে। জায়গাটির চারদিকে বিরাজ করে নীরবতা। একটু পর পর সেই নীরবতা ভাঙ্গে ঢাকা এয়ারপোর্ট এর উড়োজাহাজের শব্দে। কিছুক্ষণ পর পর সেখানে আপনার মাথার উপর দিয়ে সাঁই সাঁই করে উড়ে যাবে উড়োজাহাজ। অন্য রকম এক ভালোলাগা তৈরি করে এই সুন্দর দৃশ্য গুলো। 

দিয়াবাড়ির দর্শনীয় জায়গা সমূহ

দিয়াবাড়ির সবচেয়ে দর্শণীয় জায়গা হল বিশাল একটি বটগাছ। বাংলাদেশের বিভিন্ন নাটকে আমরা এই বটগাছটি প্রায়ই দেখতে পাই। এই বিশাল বটগাছটির দুপাশে রয়েছে রাস্তা। এই জায়গারটার নাম এখন ‘দিয়াবাড়ি বটতলা’ নামকরণ করা হয়েছে। এই অপরুপ জায়গাটিতে প্রায় সময় কোনো না কোনো নাটকের শুটিং চলে।

এই জায়গাটির বেশ কিছুদূর সামনে গেলে দেখতে পাবেন একটি মরা নদীর। এই নদীটি মূলত তুরাগ নদীর একটি শাখা। এখানে নির্মাণ করা হয়েছে একটি অপরুপ সংযোগ সেতু। এই সেতুটির উপর দাড়িয়ে আপনি আঁকা-বাঁকা নদীর নজরকাড়া সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারবেন। এই জায়গার সাথে পাড়বাঁধানো একটি লেক দিয়াবাড়ির সৌন্দর্য কে বাড়িয়ে দিয়েছে আরো কয়েকগুণ।

আপনি যদি আপনার ভ্রমন কে আরো উপভোগ্য করতে চান তাহলে আপনার জন্য রয়েছে লেকের এদিক ওদিক থেকে নৌকায় করে ঘুরে আসার ব্যবস্থা। অপরুপ রোমাঞ্চকর ও মনোরম পরিবেশে আপনি চাইলে আপনার প্রিয়জনকে নিয়ে কাটিয়ে আসতে পারেন দারুন একটি বিকেল। 

ছুটির দিনে দিয়াবাড়ি

আপনি হয়তো সারা সপ্তাহের কাজের ব্যস্ততায় আপনার পরিবারকে সময় দিতে পারেন না ঠিকমতো। কখনো বা পুরো সপ্তাহের অসহ্য কাজের চাপ আবার কখনো বা বাচ্চার স্কুল কিংবা কোচিং নিয়ে ছুটোছুটি আর অসহ্য যানজট সব মিলিয়ে আপনি হয়তো খুব ক্লান্ত। ভাবছেন আপনার একটু ব্রেক দরকার। মনে মনে ভাবছেন বাইরে কোথাও ঘুরে আসলে ভালো হতো।

ভাবনায় পড়ে গেলেন, কোথায় যাবেন? হাতিরঝিল তো অনেক বার যাওয়া হল। ঢাকার ভেতরে তো আরো অনেক রেস্তোরাঁ, ধানমণ্ডি লেক, দোয়েল চত্বর কিংবা অন্যান্য জায়গায় অসংখ্যবার যাওয়া হয়েছে। মনে মনে ভাবছেন, ইস যদি একটু সবুজ আর খোলা আকাশের নিচে ঘন্টা খানেক বসা পরিবারের সবাইকে নিয়ে ছুটিয়ে খোশগল্প করা যেত! আবার দু/তিন দিনের সফরে ঢাকার বাইরে কোথাও ও  যাওয়া পসিবল না। তাহলে, এত ভাবনার কিছু নেই, তাড়াতাড়ি তৈরি হয়ে, পরিবার কিংবা বন্ধুদের নিয়ে বেরিয়ে পড়ুন উত্তরার দিয়াবাড়ির উদ্দেশ্যে। 

দিয়াবাড়ির’ অবস্থান ঢাকার উত্তরার ১৫ নং সেক্টরে । দিয়াবাড়ির আশপাশের কাশবন নার লেকের সৌন্দর্য দেখার জন্য রাজধানীবাসীরা মূলত ছুটির দিনেে এখানে আসেন। ছুটির দিনগুলোতে ধীরে ধীরে বৈকালিক ভ্রমণের জন্য অসম্ভব জনপ্রিয় একটি টুরিষ্ট ডেস্টিনেশন হয়ে উঠছে উত্তরার দিয়াবাড়ি। রাজধানী ঢাকায় যেখানে আপনি প্রতিদিন ইট আর পাথর দেখতে দেখতে বিরক্ত হয়ে গেছেন সেখানে দিয়াবাড়ি আসার পর সবুজ দেখার ইচ্ছেটা একদম ভাল মত মিটে যাবে।

আপনি হয়তো ঠান্ডা বাতাসের ছোঁয়ায় সবুজ নির্মল পরিবেশ আর স্বচ্ছ কাশফুল দেখতে চাইছেন। দিয়াবাড়ির সৌন্দর্য্য নিয়ে তো আগে বলেছি। এবার জেনে নিন Diabari গেলে ঘুরতে ঘুরতে ক্ষুধা পেলে কি করবেন। আপনার ক্ষুধা  লাগলে চলে যেতে পারেন বটতলা থেকে দু/তিন মিনিট দূরত্বের ‘ধাবায়’। সেখানে পাবেন হরেক রকমের মুখরোচক খাবার। কি নেই সেখানে! এখানকার খাবারের ব্যবস্থা এবং মান খুব ভালো।।

এখানকার চটপটি-ফুচকায় একটি বিকেল খুব সহজেই কাটিয়ে দেয়া যায়। চটপটি-ফুচকা  না খেয়ে চাইলে পছন্দের যে কোন একটি মুখরোচক খাবার খেতে খেতে আড্ডা শুরু করে দিন! ও হ্যা আপনার যদি কাঁকড়া খাবার অভ্যাস  থাকে তাহলে আর কথাই নেই। এখানকার ধাবায় পেয়ে যাবেন কাঁকড়ার মজাদার মেন্যু।

দিয়াবাড়ির লোকেশন – Diabari Location

এবার জেনে নিন, কীভাবে যাবেন দিয়াবাড়ি

দিয়াবাড়ি যেতে হলে ঢাকার যে কোনো প্রান্ত থেকে উত্তরা রুটের যে কোনো বাসে করে প্রথমে আপনাকে হাউজবিল্ডিং বাস স্ট্যান্ডে নামতে হবে। হাউজবিল্ডিং বাস স্ট্যান্ডে নামার পর নর্থটাওয়ার ও মাসকট প্লাজার সামনেই দিয়াবাড়ি যাওয়ার জন্য অনেক রিক্সা পাবেন।

রিক্সায় চড়তে না চাইলে উঠে পড়তে পারেন লেগুনায়। লেগুনা গুলো আপনাকে সরাসরি দিয়াবাড়ি বটতলায় নামিয়ে দেবে। তাছাড়া ও প্রাইভেট গাড়ি, উবার, পাঠাও অথবা সিএনজিতে করেও ঘুরে আসতে পারবেন কাশফুলের রাজ্য দিয়াবাড়ি থেকে। কর্মব্যস্ত এই শহর থেকে একটা দিন বিরতি নিয়ে তাহলে দেখে আসা যাক কাশফুলের এই রাজ্য কে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *